বেনাপোল থেকে মালবাহী ট্রেনে যাচ্ছে মাদকের চালান

নিউজটি শেয়ার লাইক দিন

নিজস্ব প্রতিনিধি: বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের সংক্রমনের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় দেশে দেশে দ্বিতীয় ধাপের লকডাউন চলমান রয়েছে। বাংলাদেশে সম্প্রতি সময়ে ভারতীয় ভেরিয়েন্টের করোনাভাইরাস সংক্রমণের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশের দ্বিতীয় ধাপে লকডাউন চলছে। করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে বিশেষ করে যশোরসহ দেশের সাতটি সীমান্ত জেলায় কঠোর লকডাউনের নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। যে কারণে যশোর বেনাপোল সীমান্তের  সাথে ঢাকা খুলনা ও যশোরের রেল যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে দীর্ঘদিন ধরে। যাত্রীবাহী ট্রেন গুলো চালু থাকলে অধিকাংশ মাদকদ্রব্য এসব ট্রেন গুলো দিয়েই পাচার হতে দেখা গেছে। কিন্তু এসব ট্রেন বন্ধ থাকার কারণে চোরাকারবারীরা এখন বেনাপোল থেকে যশোর- খুলনা ও ঢাকাতে যাওয়া মালবাহী ট্রেন গুলো ব্যবহার করছে মাদকদ্রব্য পাচারের কাজে। সংশ্লিষ্ট রেলওয়ে স্টেশনমস্টার, জিআরপি পুলিশ, নিরাপত্তা পুলিশ ও  আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের বিশেষভবে ম্যানেজ করেই চলছে চোরাকারবারীদের মাদকের রমরমা ব্যবসা।

 

কয়েকদিনের অনুসন্ধানে জানা গেছে, যশোর বেনাপোল রেলস্টেশন মাস্টার সাইদুরের সহযোগিতাও জিআরপি পুলিশ- নিরাপত্তা বাহিনী কর্মকর্তাদের  সহযোগিতায় বেনাপোল থেকে মালবাহী ট্র্রেনে উঠানো হয় মাদকদ্রব্যের এসব চালান। বেনাপোল রেলস্টেশন এলাকায় চোরাচালানি চক্রের সাথে স্টেশন মাস্টার সাইদুরের ও নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের  রয়েছে নিবিড় সম্পর্ক। দীর্ঘদিন চক্রটি এসব কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে রাতের আধারে ভারত থেকে আসা মালবাহী ট্রেনের ভিতরে বাইরে মাদকের এসব চালান উঠানো হয়। মালবাহী ট্রেনের নিচে ও বিশেষভাবে লুকিয়ে রাখা হয় মাদকের চালান। এরপর এসব মাদক দ্রব্য চালান যশোর,নোওয়াপাড়া, খুলনা, ঢাকাতে নির্বিঘ্নে পৌঁছে যায়।গন্তব্য স্টেশনগুলোতে রয়েছে মাদকচক্রের চিহ্নিত সক্রিয় সদস্যরা। মালবাহী ট্রেন গুলো যশোর, খুলনাও ঢাকাতে পৌঁছানোর পর চিহ্নিত মাদক চক্রের সদস্যরা তড়িঘড়ি করে মালবাহী ট্রেন থেকে মাদকের চালান নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে ফেলেন।

চোরাচালানের ভিডিও দেখতে এখানে ক্লিক করুন

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বেনাপোল একাধিক সিএন্ডএফ ব্যবসায়ী জানিয়েছেন, আমদানিকারকরা বৈধভাবে ভারত থেকে মালামাল আমদানি করে থাকি। কিন্তু বেনাপোলে এসব মালামাল পৌঁছানের পর এখানকার স্টেশন মাস্টার, নিরাপত্তা কর্মকর্তা সহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের যোগসাজশে চোরাকারবারীরা মালবাহী ট্রেনের ওগানের ভিতর ও বাহিরে মালামাল উঠিয়ে নোয়াপাড়া, যশোর, খুলনা ও ঢাকায় পাচার করে থাকে। মাঝেমধ্যে এসব মালবাহী ট্রেনে মাদকদ্রব্য ধরা পড়ায় আমদানিকারকদের সুনাম নষ্ট হচ্ছে। কিন্তু সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা অজ্ঞাত কারণে এসব দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিতে দেখা যায়নি আজও পর্যন্ত। বিষয়টি বেনাপোল রেলওয়ে স্টেশন এলাকা সবাই জানে। কিন্তু চক্রটি শক্তিশালী হওয়ার কারণে তাদের বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুলতে চায় না।

বিষয়টি নিয়ে বেনাপোল নিরাপত্তা পুলিশ ফাঁড়ির অফিস ইনচার্জ বদরুল আলমের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, রেলের নিরাপত্তা বাহিনীর কাজ শুধুমাত্র প্ল্যাটফর্মের অভ্যন্তরে রেলের মালামাল ও যাত্রীদের নিরাপত্তা বিধান করা।কোন ব্যক্তি রেলওয়েও রেলের ট্রেনে মাদক পরিবহন করলে তা তাদের দেখার দায়িত্ব নয়। তবে মাদক পাচারকারী চক্রের সাথে তার নিবিড় সম্পর্ক থাকার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন।

 

বিষয়টি নিয়ে বেনাপোল স্টেশন মাস্টার সাইদুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার কাজ টিকিট সংক্রান্ত বিষয়ে ও এখানকার রেলওয়ে স্টাফ পরিচালনা করা। ট্রেনে অবৈধ মালামাল আনা নেয়ার ব্যাপারে রেলওয়ে নিরাপত্তা পুলিশসহ স্থানীয় বিজিবি, পুলিশ প্রশাসন রয়েছে। তাই এবিষয়টি আমার সাথে আলোচনা করে কোন লাভ নেই। বরং তিনি বিজিবিও পুলিশ প্রশাসনের সাথে কথা বলার জন্য পরামর্শ দেন।

উল্লেখ্য, স্টেশন মাস্টার সাইদুর এক যুগের অধিক সময় বেনাপোল রেলওয়ে স্টেশন ওযশোর রেল স্টেশনের মাস্টার হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তার বিরুদ্ধে টিকিট কালোবাজারি, মাদক পাচারের সহযোগিতা, বেনাপোল রেলসশনে অবৈধভাবে কুলি নিয়োগ, যশোর রেল স্টেশনে মালবাহী ট্রেন থেকে মালামাল লোড-আনলোডে অবৈধ অর্থ উপার্জনের অভিযোগ রয়েছে দীর্ঘদিন যাবত ধরে।যে কারণে যশোর, বেনাপোল থেকে দেশের অন্য কোন স্টেশনে বদলি হলেও তিনি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে বিশেষভাবে ম্যানেজ করে আবারো যশোর বেনাপোল রেলস্টেশন এ বদলি হয়ে আসেন। বিষয়টি নিয়ে এলাকার সুশীল সমাজের ভিতর কানাঘুষা শোনা যায় প্রায় সময়ে ।

 

রেলওয়ের পাকশী ব্যবস্থাপক ম্যানেজার সাইদুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ভারত থেকে আসা মালবাহী ট্রেনে মাদকদ্রব্যের চালানো আসা মানে বাংলাদেশ রেলওয়েকে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলা।কোন কর্মকর্তা যদি মাদক কারবারীদের সাথে জড়িত থাকে বা তাদের সহযোগিতা করে থাকে প্রমাণ পেলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *