শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কে ২০ হাজার বেকারের কর্মসংস্থানের স্বপ্ন ফিকে

নিউজটি শেয়ার লাইক দিন

তরিকুল ইসলাম মিঠু,যশোর : দেশের তথ্যপ্রযুক্তি সেক্টরকে উন্নত ও বেগবান করতে যশোর শহররে নাজীর শংকর পুরে এলাকায় ১২ দশমিক ১২ একর জায়গার ওপর ২০১৪ সালের ২৫ এপ্রিল প্রথমে ২৮৩ কোটি টাকা ব্যয়ে শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের ভিত্তিপ্রস্তর করা হয়। কিন্তু প্রকল্পের অর্থ সংকোচন না হওয়ায় তা বাড়িয়ে ৩০৫ কোটি টাকা করা হয়। সামনা-সামনি একটি ১৫ তলা ও একটি ১২ তলা স্টিল স্ট্রাকচার আধুনিক মানের দু’টি বিল্ডিং।

প্রকল্পের নির্মান কাজ শেষ হয় ২০১৬ সালের শেষের দিকে। বাংলাদেশ সরকারের আইসিটি প্রতমিন্ত্রী জুনাইদ আহমদে পলক ২০১৭ সালরে ৫ অক্টোবর প্রাথমিকভাবে উদ্বোধন করনে শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কটি। ১০ই ডিসেম্বর ২০১৭ইং গণভবন থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে পার্কটি চুড়ান্তভাবে উদ্বোধন করেন। সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কটিতে ফাইবার অপটিক কানেক্টিভিটি থাকার কথা থাকলেও দীর্ঘ দিন ধরে নাই। নিরবিছিন্ন বিদ্যুতের সরবারহের জন্য ৩৩ কেভিএ বৈদ্যুতিক সাবস্টেশন রয়েছে। আরো রয়েছে দুই হাজার কিলোওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন জেনারেটর। মূল ভবনের সামনে পাঁচ একর জায়গা জুড়ে বিশাল জলাধার। কম্পিউটারের সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট, ফ্রিল্যান্সিং,কল সেন্টার ও রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট এ চারটি ক্ষেত্রে দেশ-বিদেশের আইটি (তথ্যপ্রযুক্তি) শিল্প উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগের লক্ষ্যে এ সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক স্থাপন করা হয়।

দেশের আইটি বিশেষজ্ঞরা মনে করেছিলেন, যশোরে সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক স্থাপনের কাজ শেষ হলে দেশের তথ্যপ্রযুক্তি, আইসিটি, ফ্রিল্যান্সিং বা আউটসোর্সিং খাতের সম্ভাবনার দ্বার আরো প্রসারিত হবে। কিন্তু বাস্তবতার পেক্ষাপট ভিন্ন।
সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কটির মূল ১৫ তলা ভবনে ১ লাখ ৩৭ হাজার বর্গফুট জায়গা ইজারাযোগ্য। এ পর্যন্ত ৫৭টি প্রতিষ্ঠানের কাছে ইজারা দেওয়া প্রায় ১লাখ ৩১ হাজার ৩৭৭ বর্গফুট জায়গা। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে আবার ১৩টি প্রতিষ্ঠান তাদের ব্যবসা গুটিয়ে নিয়ে চলে গেছে বছর খানেক আগেই। বৃহস্পতিবার সকালে পার্কটিতে গিয়ে দেখা যায়, আরো এক কোম্পানি তাদের অফিসের আসবাবপত্র নিয়ে চলে যাচ্ছে। যে সব প্রতিষ্ঠান এখনো আছে, তাদের অধিকাংশ মালিক দুই বছরের অধিক সময় সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক কর্তৃপক্ষকে ভাড়া প্রদান করেন না। বর্তমানে পার্কটিতে ৭’শতাধিক মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে। কিন্তু পার্কটি উদ্বোধনের সময়ে আইসিটি প্রতমিন্ত্রী জুনাইদ আহমদে পলক বলেছিলেন পার্কটিতে ২০ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হবে।

আরো পড়ুন>>যশোরে ১৬ হাজার গ্রাহকের ৩শ’ কোটি টাকা হাতিয়ে লাপাত্তা এহসান মাল্টিপারপাস

যশোর হাইটেক পার্কে ডরমিটরিটি তিন তারকা মানের। মোট কক্ষ ৯০টি। ভিআইপি সুইট কক্ষ ১২টি, ফ্যামিলি ডিলাক্স কক্ষ ৩৬টি ও দুই বিছানার কক্ষ ৩০টি। ১৪০ জনের মতো থাকার সুযোগ-সুবিধা রয়েছে। ভিআইপি কক্ষে থাকার জন্য প্রতি রাতের ভাড়া ৭ হাজার ৬০০ টাকা ও অপর দুই ধরনের কক্ষের ভাড়া ৩ হাজার ৮০০ টাকা করে। তবে পার্কে বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানের জন্য ভাড়া নির্ধারিত আছে ৮০০ টাকা। কথা ছিল দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারী, ক্রেতা ও কর্মীরা গেলে ডরমিটরিতে থাকবেন। যদিও এখন বেশির ভাগ কক্ষ সব সময় খালি থাকে।
তবে সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কটির ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্টান টেকসিটির বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ রয়েছে।একাধিক ব্যবসায়ী জানিয়েছেন প্রতিষ্টানটি আইটির সাথে সংযুক্ত নয়ও অনাভিজ্ঞ অব্যবসায়ীদের কাছে ফ্লোর ভাড়া দেওয়ায় এখানে নানা ধরনের সমস্য তৈরি হচ্ছে। এমনকি কাপড়ের দোকনদার,সাংবাদিক ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের কাছে ভাড়া দেওয়ায় সমস্য প্রকট হয়ে দাড়িয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আরো অভিযোগ আছে,কোনো প্রতিষ্ঠানের বর্গফুট প্রতি ১৮ টাকা, কোনো প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ২২ টাকা, কোন প্রতিষ্ঠান থেকে ১২টাকা, কোন প্রতিষ্ঠান থেকে ১৫ টাকা হারে প্রতি বর্গফুটের ভাড়া আদায় করছে। তবে টেকসিটির কর্তৃপক্ষ বিষয়টি অস্বীকার করেছেন।

অনুসন্ধানে জানা যায়, সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কটির ১১ তলায় এক্সেনটিক বিপি নামের একটি প্রতিষ্ঠান ৬ হাজার বর্গফুটের জায়গা নিয়ে প্রায় দুই বছর যাবত ভাড়া পরিশোধ করেন না। প্রতিষ্টানটির কাছে ভাড়া বাবদ বকেয়া রয়েছে প্রায় ২০ লাখ টাকা। চতুর্থ তলায় ১২ হাজার বর্গফুট জায়গা নিয়ে রেখেছে ডিজিকন নামে একটি প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্টানটির নিকট বকেয়া রয়েছে ৯ লাখ টাকা। সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কটির ৭তম তলায় ফাইবার হোম নামে একটি প্রতিষ্ঠান ১ হাজার ৭০ বর্গফুট জায়গা নিয়ে রেখেছে। প্রতিষ্ঠানটির কাছে ভাড়া বকেয়া রয়েছে প্রায় ৬ লাখ টাকা, ভবনটির তৃতীয় তলায় ডেসটেনি নামে একটি প্রতিষ্টান আড়াই হাজার জায়গা নিয়ে রেখেছে। প্রতিষ্ঠানটির কাছে বয়েয়া আছে প্রায় ৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা। এভাবে সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কটির অধিকাংশ ব্যবসায়ীদের কাছে কোটি টাকার অধিক বকেয়া রয়েছে। যা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কটির ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠানটির কপালে ভাজ ফেলে দিয়েছে।

সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কটির ১১ তলায় অবস্থিত এক্সেনটিক বিপির অফিস ব্যবস্থাপক আব্দুস সাত্তারের মুঠোফোন সংযোগ দিয়ে বিপুল অংকের ভাড়ার টাকা বকেয়া থাকার বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি প্রতিষ্ঠানটির মালিক আবু সাইদ চঞ্চালের কোর্টের মোড়ের একই নামের একটি কাপড়ের দোকানে থাকতাম। তিনি সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কে অফিস করার পরে আমাকে এখানে দিয়েছিল অফিস ব্যবস্তাপণার জন্য। কিন্তু অফিসের তেমন কোন কার্যক্রম না থাকায় আমি দু’বছর আগেই সেখান থেকে চলে গিয়েছি। তবে প্রথমে অফিস চালু করে কমিউটারের বিভিন্ন বিষয়ের উপর প্রশিক্ষণ দিতেন। সেগুলো ঠিকঠাকভাবে না চলার কারণে আমি সেখান থেকে চলে যায়। তাই অফিস ভাড়ার বিষয়টি সম্পর্কে তিনি কিছুই জানেন না বলে তিনি জানান।
চতুর্থ তলায় ডিজিকন নামের প্রতিষ্ঠানটির ম্যানেজার তানভির রহমানের কাছে ৯ লাখ টাকা বকেয়ার বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন,আমরা মুলত বিভিন্ন ফোন কোম্পানির কলসেন্টারের কাজ করে থাকি। কিছু দিন হলো এয়ারটেল ফোন কোম্পানির কলসেন্টারের কাজ শেষ হয়েছে। এখন নতুন কোন কোম্পানির সাথে এগ্রিমেন্ট হলে আমরা সরকারের ভাড়া দিতে পারবো। তাছাড়া সরকারের পক্ষ থেকে আমাদের কিছু টাকা মওকুপ করার কথা ছিল। কিন্তু করে নায়। যে কারণে মোটা অংকের টাকা বকেয়া পড়ে গেছে।
ভবনটির তৃতীয় তলায় ডেসটেনি নামে প্রতিষ্ঠানটিতে গিয়ে কাউকে পাওয়া যায়নি। টেকসিটির কাছে থাকা ফোন নাম্বার নিয়ে তার ফোন নাম্বারে ফোন দিলেও তার ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

আরো পড়ুন>> অস্ত্রসহ আটক আজিমের ভাই ফুটপাতের মুড়িভাজা বিক্রিতা থেকে কোটি কোটি টাকার মালিক

শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কটি উদ্বোধনের সময়ে তথ্য প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ বলেছিলেন, যশোর শেখ হাসিনা হাইটেক পার্ক হবে বাংলাদেশের সিলিকন ভ্যালি। উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের সিলিকন ভ্যালি বহু প্রযুক্তি কোম্পানির আঁতুড়ঘর। গবেষণা ও উদ্ভাবনের ক্ষেত্রে সেটি বিশ্বের অদ্বিতীয়। তথ্যপ্রযুক্তি খাতের রপ্তানি আয় ২০২১ সালের মধ্যে পাঁচ বিলিয়ন ডলারে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্য পূরণে এই পার্ক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। এ সময়ে আইটি খাতে অনন্ত ২০ লাখ তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। মেধাভিত্তিক অর্থনীতির দ্বার উন্মোচিত হবে পার্কটি চালুর মাধ্যমে। কিন্তু তিন বছর পরেও সেই আশা যেন ফিকে হতে চলেছে।

হতাশার প্রধান কারণ বড় বানিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলো বিনিয়োগে এগিয়ে আসেনি। আইটিতে জ্ঞান নেই এমন লোকজন প্রতিষ্ঠান খুলে বসে প্রথম দিকে মানুষের সাথে প্রতারণা শুরু করেন। যে কারণে প্রকৃত আইটি ব্যবসায়ীরাও এখন আর এখানে আসতে চাইছে না। বিদেশি বিনিয়োগ ও আসেনি। বর্তমান বিনিয়োগকারীদের বেশির ভাগ প্রশিক্ষণ ভিত্তিক,গতানুগতিকের, ডিজিটাল মার্কেটিং, কল সেন্টার পরিচালনা ও গ্রাফিকস ডিজাইনিংয়ের কাজ করেন। কর্মসংস্থানের লক্ষ্য পূরণের ধারের কাছেও যেতে পারেনি পার্কটি। বিনিয়োগকারীদের মধ্যে বেশির ভাগই প্রতিষ্ঠান পার্কটি ছেড়েছেন। বিপুল ব্যয়ে নির্মিত ডরমিটরি বা আবাসনসুবিধা খালিই থাকছে। সম্মেলনকেন্দ্র বা অ্যাম্ফিথিয়েটার বিয়ের অনুষ্ঠানের জন্য ভাড়া দেওয়া হয়। কিন্তু কাউকেই এখানে ভাড়া নিতে দেখা যায় না। কারণও ভাড়ার পরিমাণ আকাশ ছোঁয়া।
বিনিয়োগকারীরা বলছেন, সরকারের যেসব স্বল্পমেয়াদি প্রশিক্ষণ দেয়, তাতে কোনো দক্ষ কর্মী তৈরি হয় না। ২০১৭ সালে যশোর পার্কে বড় আয়োজন করে চাকরি মেলা করা হয়েছিল। ওই সময়ে চাকরি প্রার্থীদের প্রচুর আবেদন জমা পড়ে। কিন্তু অদক্ষও অনাভিজ্ঞতার কারণে সেখান থেকে জনবল নিয়োগ করা সম্ভাব হয়নি। তাই যথাযথ প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে এসব অদক্ষদের প্রথমে দক্ষ করে তুলতে হবে। তাহলেই কাংঙ্খিত লক্ষ্যে পৌছানো সম্ভাব হবে বলে তারা জানান।

আরো পড়ুন>> ৪ শতক জমি থেকে ৬০ বিঘার মালিক, পুঁজি দলিল লেখক

উল্লেখ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১০ সালের ২৭ ডিসেম্বর যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস উদ্বোধনের সময় যশোরে আন্তর্জাতিক মানের একটি আইটি পার্ক স্থাপনের ঘোষণা দেন। দীর্ঘদিন পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও যাচাই-বাছাইয়ের পর ২০১৪ সালের ২৫ এপ্রিল প্রথমে ২৮৩ কোটি টাকা ব্যয়ে যশোর শহরের নাজির শংকুরপুর এলাকায় এ প্রকল্পের কাজ শুরু করা হয়। ২০১৬ সালের শেষের দিকে শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কটির নির্মাণ কাজ শেষ হয়। ২০১৭ সালরে ৫ অক্টোবরে বাংলাদেশ সরকারের আইসিটি প্রতমিন্ত্রী জুনাইদ আহমদে পলক পার্কটি প্রথমে উদ্বোধন করনে। ১০ই ডিসেম্বর ২০১৭ইং গণভবন থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে পার্কটি চুড়ান্তভাবে উদ্বোধন করেন। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওই সময়ে বলেছিলেন,দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলের কমপক্ষে ২০ হাজার মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ হবে এ সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক । প্রধানমন্ত্রী আরো জানিয়েছিলেন,যশোর শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক উদ্বোধনের মাধ্যমে মেধাভিত্তিক অর্থনীতির উন্মোচিত হবে। তাই দেশে আরো এমন ২৮টি হাইটেক পার্ক স্থাপনের পরিকল্পনার কথাও জানিয়েছিলেন। এসব পার্কে আইসিটি পণ্য উৎপাদিত হবে। যা রপ্তানি করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করবে দেশ। দেশে শিক্ষিত বেকারদের বেকারত্ব ঘুচাবে।

শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের ইনভেষ্টটর এসোসিয়েশনের সম্পাদক মহিদুল ইসলামের কাছে পার্কে আশানুরুপ কর্মসংস্থান না হওয়ার বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন,আসলে সব মানুষ ঢাকা মুখী। তবে এ অঞ্চালের যারা ঢাকাতে বিভিন্ন ধরনের আইটির সাথে জড়িত ছিল তারা এখন এখানে ব্যবসা করছে। তাছাড়া দক্ষ জনবল না পাওয়ায় এখানে কর্মসংস্থানের সুযোগ হচ্ছে না। বর্তমানে পার্কটিতে ৭’শতাধিক মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে। এর মধ্যে চালডাল ই-কমার্সের কল সেন্টারে ৩’শতাধিক ও ডিজিকন নামে অপার কল সেন্টারে দু’শতাধিক তরুন-তরুনীর কর্মসংস্থান হয়েছে। বাদবাকিরা হাইটেক পার্কের বিভিন্ন অফিসে কর্মরত আছেন।

আরো পড়ুন>>আদ-দ্বীন চক্ষু হাসপাতালের বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ

শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের ব্যস্থাপনার দায়িত্বে থাকা বেসরকারি প্রতিষ্ঠান টেক সিটির ম্যানেজার এমইউ শিকদার বলেন, শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কটি ১৫ বছরের জন্য ব্যস্থাপনার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে টেকসিটি বাংলাদেশ নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে। আমি যথাযথা ভাবে প্রতিষ্ঠানটির দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি। এখান থেকে যে,পরিমানে আয় হবে তার ৮২ শতাংশ পাবে ব্যবস্থাপনা কোম্পানি টেকসিটি। আর সরকার পাবে ১৮ শতাংশ। ব্যবস্থা কোম্পানির প্রতিনিধি হিসাবে আমি সর্বদা ব্যবসায়ীদের সুবিধা-অসুবিধা দেখে আসছি। ইতোমধ্যে অফিস ভাড়া নেওয়া অনেক ব্যবসায়ীর কাছে দুই বছরের অধিক সময়ের ভাড়া বকেয়া রয়েছে। আমরা বার বার তাদেরকে নোটিশ দিচ্ছি। কিন্তু তারা আমাদের ভাড়া প্রদান করছে না। বিষয়টি নিয়ে আমরাও বেকায়দায় আছি বলে জানান এ কর্মকর্তা।
বিষয়টি নিয়ে আইসিটি প্রতমিন্ত্রী জুনাইদ আহমদে পলকের মুঠোফোনে সংযোগ দিয়ে জানতে চাইলে ফোনের অপার প্রান্ত থেকে প্রতমিন্ত্রী জুনাইদ আহমদে পলকের পিএস সাদ্দাম হোসেন পরিচয় দিয়ে বলেন, স্যার এখন ব্যবস্থা আছেন। ফ্রি হলে আপনার সাথে কথা বলবেন বলে তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *