বেনাপোল সীমান্তে ৫০ কোটি টাকার সোনা জব্দ

নিউজটি লাইক-শেয়ার করুন

তরিকুল ইসলাম মিঠু:বেনাপোল সীমান্তে ১০৫ দিনে ২৩ কেজি ৫০০ গ্রাম সোনা জব্দ  হয়েছে। যার বাজার মূল্য প্রায় ৫০ কোটি টাকা বলে জানিয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

বিজিবি সূত্র থেকে জানা গেছে, আজ মঙ্গলবার বিকালে বেনাপোল আমড়াখালী বিজিবির চেকপোষ্টে দু’কেজি ওজনের চব্বিশটি সোনার বারসহ বাকিবিল্লাহ (২৬) নামে এক পাচারকারীকে আটক করেন। সে পুটখালী ইউনিয়নের বালুন্ডা গ্রামের ওয়াব আলীর ছেলে।

৫ই ডিসেম্বর (শুক্রবার) রাতে যশোর চৌগাছা সীমান্তের শাহজাদপুর বিওপির একটি টিম শাহজাদপুর-কাশিপুর সীমান্তের মধ্যবর্তী স্থান অভিযান চালিয়ে প্রায় ৭ কেজি ওজনের ৬০ টি সোনার বার জব্দ করেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যরা । জব্দকৃত সোনার বাজার মূল্য প্রায় পাঁচ কোটি টাকা। তবে ওই সময় কোন পাচারকারীকে আটক করতে পারেনি বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যরা।

৩০  নভেম্বর যশোরে দুপুরে যশোর-মাগুরা সড়কের বাহাদুরপুর বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যরা ৩ কেজি ৫০০ গ্রাম ওজনের ৩০ টি সোনার বারসহ রতন কুমার পোদ্দার (৪৯), প্রদীপ সাহা (৫৫) ও পংকজ দত্ত (৪৮) নামে ৩ পাচারকারীকে আটক করেন।

 

আটককৃতরা রতন কুমার পোদ্দার মুন্সিগঞ্জ জেলার পঞ্চসার গোলাপ রায় গ্রামের গোলাপরায় পোদ্দারের ছেলে, প্রদীপ সাহা ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর জীবনগঞ্জ মাঝিয়ারা গ্রামের মৃত মিন্টু সাহার ছেলে ও পংকজ দত্ত ঢাকা গেন্ডারিয়া থানার কালিগঞ্জ সাহা রোড এলাকার সুবল দত্তের ছেলে। জব্দকৃত সোনার বাজার মূল্য দুই কোটি ৪২ লাখ টাকা ।

১৯ নভেম্বর সকাল দশটার দিকে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ বিজিবি সদস্যরা বেনাপোল আমড়াখালী বিজিবির চেকপোষ্টে একটি লোকাল বাস তল্লাশি করে আশিকুর রহমান নামে এক সোনা পাচারকারীকে আটক করেন । এরপর তার দেহ তল্লাশি করে ১৩টি সোনার বার জব্দ করেন। ওই সব সোনার ওজন ছিল এক কেজি ৪০০ গ্রাম। জব্দকৃত সোনার বাজার মূল্য ছিল প্রায় আড়াই কোটি টাকা।

২৯ আগস্টে (শুক্রবার) রাতে বেনাপোল সাদিপুর গ্রামের দুখু মিয়ার স্ত্রী বানেছা বেগমকে সাদিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে থেকে ৯ কেজি ২০০ গ্রাম ওজনের ৫৭টি সোনার বারসহ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যরা তাকে আটক করেন। জব্দকৃত সোনার বাজার মূল্য ছিল প্রায় ৫ কোটি ৭০ লাখ টাকা।

বেনাপোল সীমান্তে ১০৫ দিনে  বিজিবি ব্যাটালিয়নের সদস্যরা পাঁচটি অভিযানে মোট ২৩ কেজি ৫০০ গ্রাম সোনা জব্দ  করেন। যার বাজার মূল্য প্রায় ৫০ কোটি টাকা

 

যশোর ৪৯  বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল সেলিম রেজা বলেন,৪৯ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিভুক্ত সীমান্তগুলো বিজিবি সদস্যরা কঠোর নজরদারিতে আছেন।  সীমান্ত জুড়ে যে কোন ধরনের পাচার রোধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ফলে প্রতিনিয়ত বিজিবি সদস্যদের হাতে বিপুল পরিমাণে সোনা জব্দ হচ্ছে। একই সাথে সোনা পাচারকারীদের কেউ আটক করা হচ্ছে। সোনা পাচারকারীদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয় থাকে।  সোনা চোরাচালানের গডফাদারা আইনের আশ্রয় না আসার বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি গডফাদারদের ধরতে ও মামলা দিতে। অনেক গডফাদারদের নামে ইতিপূর্বে আমরা মামলাও দিয়েছি। কিন্তু বাকিটা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপর নির্ভর করে। কিন্তু কেন যে সোনা চোরাচালানীদের গডফাদার ধরা পড়ছে না সে বিষয়টি মামলার তদান্ত কর্মকর্তাই ভালোভাবে বলতে পারবেন বলে তিনি জানান।

 

সোনা চোরাচালানীদের মূল হোতারা ধরা না পড়া ও শাস্তি না হওয়ার বিষয়টি বেনাপোল পোর্ট থানা অফিস ইনচার্জ মামুন খানের কাছে জানতে চাইল, তিনি বলেন এই মামলাগুলো সাধারণত তদন্তের জন্য গোয়েন্দা সংস্থা (সিআইডি)কে দেওয়া হয়। তাই প্রকৃত সোনার মালিকরা ধরা না পড়ার কারণ গোয়েন্দা কর্মকর্তারাই ভালোভাবে বলতে পারবেন। তাছাড়া এসমস্ত গডফাদাররা আইনের ফাঁক দিয়েও কিভাবে বের হয়ে আসছে সেটাও সিআইডি উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা ভাল বলতে পারবেন বলে জানান এ কর্মকর্তা। ।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *