পুলিশ হেফাজতে নির্যাতনের শিকার বিপু, হেলিকপ্টার যোগে ঢাকায়

নিউজটি লাইক-শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিনিধি:  যশোরে পুলিশ সদস্য ইমরানকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের ঘটনায় আটক হওয়া যশোর পৌর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এসএম মাহমুদ হাসান বিপুকে পুলিশ হেফাজতে নিয়ে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। গতকাল দুপুরে তিনি পুলিশ হেফাজত থেকে মুক্ত পাওয়ার পরে হঠাৎ করে অসুস্থ হয়ে পড়েন। মাহমুদ হাসান বিপু অভিযোগ করে বলেন তাকে পুলিশ হেফাজতে নেয়ার পরে চোর ডাকাতের মতো থানায় নিয়ে নির্যাতন করা হয়েছে। এক পর্যায়ে বুধবার দুপুরের দিকে সে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে চিকিৎসার জন্য  যশোর শামস-উল-হুদা স্টেডিয়াম থেকে তাকে হেলিকপ্টারযোগে ঢাকা নেওয়া হয়।

উল্লেখ্য গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে পুলিশ হেফাজত থেকে মুক্ত পাওয়ার পর তিনি যশোর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।  আজ বেলা ১২ টার দিকে তার অবস্থার অবনতি হলে পরিবারের লোকজন একটি প্রাইভেট কম্পানির হেলিকপ্টারে করে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়। দুপুর দুইটার দিকে যশোর শামসুল হুদা স্টেডিয়াম থেকে হেলিকপ্টার যোগে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা নেওয়া হয়।

এর আগে মঙ্গলবার রাতে পুলিশ সদস্যকে মারপিটের ঘটনায় চারজনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা ২০-২৫ জনের নামে কোতোয়ালি থানায় মামলা হয়।

মাহমুদ হাসান বিপুকে আটকের পর ওই রাতেই পুলিশ শাহীন চাকলাদার সমর্থক আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের ৭ নেতাকর্মীর বাড়িতে ভাংচুর ও তাণ্ডব চালিয়েছে বলে অভিযোগ উঠে।

আওয়ামী লীগ নেতাও অভিযোগ , সোমবার মধ্যরাতে পুলিশ যশোর-৬ আসনের সংসদ সদস্য জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার, যশোর জেলা আওয়ামী লীগ সহসভাপতি আব্দুল খালেক, তার ছেলে পৌর কাউন্সিলর হাজী সুমন, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক কার্যনির্বাহী সদস্য পৌর কাউন্সিলর গোলাম মোস্তফা, জেলা যুবলীগের সদস্য মনজুর আলম, এমএম কলেজ ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুর রহমান এবং যুবলীগ কর্মী সোহাগের বাড়িতে হামলা চালিয়েছে। এ সময় বাড়িগুলোতে ভাংচুর ও তাণ্ডব চালানো হয়।

যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. দিলীপ কুমার রায় জানিয়েছেন, যশোরের পৌর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এসএম মাহমুদ হাসান বিপু পুলিশ হেফাজত থেকে মুক্ত হওয়ার পর হাসপাতালে ভর্তি হয়। এখানে তাকে চিকিৎসকদের একটা টিম বসিয়ে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। তবে তার অবস্থার কোনো পরিবর্তন না হয় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতাল এ পাঠানোর পরামর্শ দেয়া হয়। একপর্যায়ে দুপুরে দিপুকে একটা প্রাইভেট কম্পানির হেলিকপ্টারে করে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা নেয়া হয় বলে তিনি জানান।

নির্যাতনের অভিযোগ অস্বীকার করে পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ আশরাফ হোসেন বলেন, ‘ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের পরামর্শে মাহমুদ হাসান বিপুকে আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতাদের জিম্মায় মুক্তি দেওয়া হয় । মুক্ত হওয়ার পর এখান থেকে সুস্থভাবে বাসায় ফিরে যান।কিছু সময় পরে সে আওয়ামী লীগের পার্টি অফিসে গিয়ে ভুল স্বীকারের বক্তব্য দেন। এরপর তিনি অসুস্থতার নাটক ও পুলিশের বিরুদ্ধে নির্যাতনের মিথ্যা অভিযোগ করছেন। যেটা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *