পুলিশ পেটানো: আটক আ: লীগ নেতা মুক্ত, তিন কর্মী এখনো আছে হেফাজতে

নিউজটি লাইক-শেয়ার করুন

স্টাফ রিপোর্টার: যশোরে  পুলিশ সদস্যকে মারপিট ও অপহরণের চেষ্টার অভিযোগে পুলিশের হেফাজতে থাকা আমলীগের নেতা সহ চারজনের মধ্যে দুপুরে শুধুমাত্র শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হাসান বিপুকে মুক্তি দিয়েছে পুলিশ। তবে তার সাথে হেফাজতে থাকা অপর তিনজনকে এখনো মুক্তি দেওয়া হয়নি। পুলিশের একটি সূত্র জানিয়েছে, ওই তিনজনের মধ্যে দুইজনকে মারপিট ও অপহরণচেষ্টার মামলা দিয়ে গ্রেফতার দেখানো হতে পারে।
পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সোমবার (১১ জানুয়ারি) রাত আটটার দিকে শহরের পুরাতন কসবায় নতুন কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকায় ইমরান নামে সাদা পোশাকে এক পুলিশ সদস্য তার বান্ধবীর সঙ্গে কথা বলছিলেন। ওই সময় ক্ষমতাসীন দলের কতিপয় নেতাকর্মী সেখানে গিয়ে নারীর সাথে গল্প করতে দেখে তার ওপর চড়াও হন। নিজের পরিচয় দিয়ে ও পরিচয়পত্র দেখিয়ে পুলিশ কনস্টেবল ইমরান এর প্রতিবাদ করেন। কিন্তু তারা ক্ষ্যান্ত না হয়ে তাকে মারপিট করে এবং অপহরণ করে পাশের আবু নাসের ক্লাবে নিয়ে যায়। ওই ঘটনার সময় সেখানে শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হাসান বিপুও ছিলেন। খবর পেয়ে পুলিশের বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা শহীদ ইমারানকে উদ্ধার ও আওয়ামী লীগ নেতা মাহমুদ হাসান বিপুসহ চারজনকে হেফাজতে নেয়।
এরপর প্রায় ১৯ ঘণ্টা ধরে তারা পুলিশ হেফাজতে থাকলেও তাদের আটক দেখানো হয়নি বলে জানান পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। একপর্যায়ে মঙ্গলবার দুপুর  তিনটার দিকে যশোর কোতয়ালী থানা থেকে আওয়ামী লীগ নেতা বিপুকে মুক্তি দেওয়া হয়।
জানতে চাইলে কোতয়ালী থানার ইনসপেক্টর (তদন্ত) শেখ তাসমীম আলম বলেন, পুলিশ সদস্যকে মারপিটের ঘটনায় বিপুকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় ডেকে আনা হয়। তার বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা না পায়ওয়া তাকে পুলিশ হেফাজত থেকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। তবে তার সাথে পুলিশ হেফাজতে থাকা আরও তিনজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তাদের মধ্যে দুজনকে অপরাধেের সাথে জড়িত থাকার প্রমাণ মিলেছে। দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থাা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *