নামে বেনামে প্রতিষ্ঠান খুলে চলছে প্রতারণা,লাখো বেকার অর্থ খুইয়ে নিঃস্ব

নিউজটি শেয়ার লাইক দিন

শওকত আজিজ লাল্টু: বৃহত্তর যশোরে জেলায় নামে-বেনামে প্রতিষ্ঠান খুলে চালানো হচ্ছে প্রতারণা। বিভিন্ন সময়ে সংবাদ মাধ্যমে প্রতারণার বিষয়গুলো ফলোও করে ছাপানো হলেও কয়েক দিন গাঁ-ঢাকা দিয়ে আবারো আবারো সদর্পে প্রতারণা চালিয়ে যাচ্ছে একটি চিহ্নিত প্রতারক চক্র। তবে স্থায়ী প্রশাসন সব জানলেও অজ্ঞাত কারণে এসব প্রতারকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে দেখা যায়নি কখনো।

গত ৩ই নভেম্বর ২০২০ ইং তারিখে যশোরের চাঁচড়া চেকপোষ্টে ইউনিক সিকিউরিটি সার্ভিস নামে একটি নামসর্বস্ব প্রতিষ্ঠানের সংবাদ প্রকাশ করে যশোরের বহুল প্রচারিত অনলাইন পত্রিকা নোভানিউজ২৪ ডট কমের বাংলাদেশ পেজে। এর পর পরই যশোরের বেশ কয়েকটি পত্রিকাও নিউজটি ফলোও করে প্রকাশ করেন। নিউজ প্রকাশের পর পর প্রতারক চক্রের সদস্যরা অফিস বন্ধ করে কয়েক দিন গাঁ ঢাকা দেয়। কিন্তু কয়েক দিন যেতে না যেতেই  তারা আবারো অফিস খুলো পুরো দস্তুর প্রতারণা শুরু করেছে। প্রতারক চক্রের মূল হোতা রিয়াজুল ইসলাম কখনো সে নিজেকে এমপি নাসিরের স্বজন,কখনো যশোরের স্থানীয় এক পত্রিকার সাংবাদিকের আত্নীয় আবার কখনো যশোরের বিশেষ বিশেষ ব্যক্তির নাম ভাঙ্গিয়ে এ ব্যবসা করে আসছে দীর্ঘ দিন ধরে। বেকার যুবকদের চাকুরী দেওয়ার নাম করে জন প্রতি ৫০ হাজার থেকে দুই লাখ টাকা করে হাতিয়ে নিচ্ছে। চাকুরী প্রত্যাশী এসব যুবক টাকা দিয়েও বছরের পর বছর চাকুরী না পেয়ে দারে দারে ঘুরছে। চাকুরীর জন্য দেওয়া টাকা ফেরত চাইলেও তাদেরকে দেওয়া হচ্ছে হুমকি-ধামকী। এসব প্রতারক চক্রের রয়েছে আবার ঢাকা,নড়াইল,ঝিনাইদহ,মাগুরাসহ একাধিক জেলায় শাখা অফিস।

যশোর মেডিকেল কলেজে চাকুরী নেওয়ার জন্য টাকা দেওয়া বাসার, ইমরান, ইমন (ক), ইমন (খ), হাবিবুর রহমান, খালিদ, সুমন, মেহেদী হাসান, আসাদ,আবু সাঈদসহ আরো অনেকে জানায়, যশোর চেকপোষ্টে ইউনিক সিকিউরিটি সার্ভিস লিমিটেডে আমরা গত দু’ বছর আগে এক এক জন ৫০ হাজার থেকে ১ লাখ করে টাকা করে দিয়েছি। প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক রেয়াজুল আহমেদ আমাদের কে বলেছিল জামানতের টাকা দেওয়ার তিন মাসের মধ্যে আমাদেরকে চাকুরী দেওয়া হবে। কিন্তু দুই বছর অতিবাহিত হয়ে গেলেও তারা আমাদের কাউকেই এ পর্যন্ত চাকুরী দেন নি। জামানতের টাকা ফেরত চাইলেও তারা মাসের পর মাস টাকা দেওয়ার দিন ক্ষণ ধার্য  করলেও আজও পর্যন্ত করারোর টাকা দেয়নি। তাছাড়া টাকা ফেরত চেয়ে বার বার ফোন করে বিরক্ত করলে তাদেরকে স্থানীয় মাস্তান দিয়ে শায়েস্তা করারও হুমকি দেওয়া হয় বলে জানান এসব ভুক্ত ভোগীরা।

ট্রেনের টিটির জন্য টাকা লগ্নীকার ভুক্তভোগী, জুয়েল পারভেজ, সিরাজুল ইসলাম, সিমুল অধিকারী, তন্ময় অধিকারী,মহিবুল ইসলাম, বিপ্লব মন্ডল, ওবাইদুল ইসলাম, হাবিবুর রহমান, নিউটন মন্ডল,শুধাংসু মন্ডল, তমাল রায় ,রায়হান,শহিদুজ্জামান, কাজি হামিদুল্লাহ,কামরুজ্জামান, মাহাবুর রহমান, বিভাস মন্ডল, তুহিন কবির,কর্ণকুমার ,মোস্তফা রহমান, তোফায়েল আহমেদ,আবুল কালাম,মাসুদ রানা,সজিব হোসেন, আজিজুর রহমান ,রাজিবউদ্দিনমো, হাবিবুর রহমান,দাউদ হোসেন বলেন, আমাদের সবাইকে ট্রেনের টিটির চাকুরী দেওয়ার নাম করে জামানত হিসাবে ৫০ থেকে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত নিয়েছে গত দু’বছর হলো। কিন্তু তারা আমাদের কাউকে এখনো পর্যন্ত কোন চাকুরী দিতে পারেনি। জামানতের টাকা ফেরত চাইলে তারা আমাদের বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধামকী দেন। প্রতিষ্ঠিানের পরিচালক রিয়াজুল আহমেদ কখনো বলেন আমি এমপি নাসিরের লোক, কখনো বলেন পুলিশের এসপি,ওসি আমার আত্নীয়, তাছাড়া বড় বড় রাজনৈতিক নেতা তার বড় ভাই। তাই জামানতের টাকা নিয়ে বেশি বাড়া বাড়ি করলে পিটিয়ে হাত-পা ভেঙ্গে দেওয়া হবে। এর পর সবাইকে সন্ত্রাসী বলে পুলিশের কাছে হস্তন্তর করা হবে। এসব ভয় দেখানোর পর থেকে জামানতকারীরা বিষয়টি নিয়ে কোন টু-শব্দ করে না বলে জানান তারা। জামানতের এ বিপুল পরিমানের টাকা ফেরত ফেতে ভুক্তভোগীরা সংবাদ কর্মীদেরম মাধ্যমে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

ইউনিক সিকিউরিটি সার্ভিসের পরিচালক রিয়াজুল আহমেদের কাছে বেকার যুবকের টাকা আত্নসাতের বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা করোনার কারণে লোকজনকে চাকুরী দিতে পারেনি এটা সঠিক। তবে তাদের টাকা আত্নসাতের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, চাকুরী প্রত্যাশীদের জামানতের টাকা আস্তে আস্তে ফেরত দেওয়ার চেষ্টা চলছে বলে তিনি জানান।

 

অপার দিকে উদয়ন সমাজ কল্যাণ সমিতির নামে একটি প্রতিষ্ঠানের ব্যানারে যশোর নড়াইল ও মাগুরা জেলায় ভয়াবহ প্রতারণা করা হয়েছে। উচ্চ বেতন ভাতা দেয়ার নাম করে করা হয়েছে নিয়োগ প্রতারণা। এ প্রতিষ্ঠানটিও দেশের বেকার যুবকদের কাছ থেকে ৩০ হাজার টাকা থেকে ৫০ হাজার টাকায় পদ বিক্রি করে প্রায় কোটি টাক আদায় করে লাপাত্তা হয়েছে । জামানত দিয়ে ৫ শতাধিক বেকার যুবক যুবতী এখন পথে পথে ঘুরছেন। এছাড়া তিন জেলায় গ্রামে গ্রামে পরিবার কেন্দ্রিক গাছ জরীপ প্রতারণার শিকার হয়েছেন লক্ষাধিক মানুষ্। এব্যাপারে দ্রুত প্রতারক চক্রকে আটক ও টাকা ফেরত পাওয়ার দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা

অনুসন্ধানে জানা গেছে,২০২০ সালের প্রথম দিকে উদয়ন সমাজ কল্যাণ সমিসতি (ইউএসকেএস) নামে একটি প্রতিষ্ঠানের ব্যানারে অফিস নেয়া হয় যশোর নড়াইল ও মাগুরা জেলায়। বায়ু মন্ডলে কার্বণহ্রাস করণ প্রকল্পের আওতায় ব্যক্তি মালিকানাধীন গাছ বেইজ লাইন সার্ভে করার কাজ শুরু করে। নড়াইলের বাসিন্দা গোলাম আকবর নামে এক ব্যক্তি খুলনা বিভাগীয় ব্যবস্থাপক পরিচয় দিয়ে একটি সু-সংগঠিত প্রতারক চক্রকে সাথে নিয়ে ৩ জেলায় নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করেন। ৩০ হাজার টাকা থেকে ৫০ হাজার টাকা করে জামানত নিয়ে এরিয়া ম্যানেজার, শাখা ম্যানেজার, মাঠ কর্মী ও মনগড়া আরো কয়েকটি পদে নিয়োগের নামে ৩ জেলা থেকে কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়া হয়। যশোর শিক্ষাবোর্ড এলাকায় নেয়া হয় যশোর অফিস। ঢাকা মতিঝিলে দিলকুশায় উদয়নের কেন্দ্রীয় কার্যালয় বলে প্রচার করে গোলাম আকবর প্রশাসনিক কর্মকতা সাইফুল ইসলাম, সিইও জাহিদুর রহমান খানের নাম ভাঙিয়ে অর্থ আদায় শুরু করেন। যশোর মাগুরা ও নড়াইল এলাকার সহজ সরল বেকার যুবক যুবতী প্রতারাণায় পড়ে বাড়ির হাঁস-মুরগী,গরু,ছাগল বিক্রি করে জামানতের টাকা ওই প্রতারক চক্রের হাতে তুলে দেন। এরপর ওই ৫ শতাধিক কর্মীকে তিন জেলার গ্রামে গ্রামে নাম-সর্বস্ব গাছ জরীপের কাজে লাগিয়ে দেয়া হয়। যাতে তারা বুঝতে পারে তারা চাকরি করছেন। প্রত্যেককে ১০ হাজা থেকে মাসিক ৩০ হাজার টাক পর্যন্ত বেতন দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে কারো কারো ২২ হাজার টাকা মাসিক বেতন দেয়া হবে মর্মে নিয়োগ পত্রও দেয়া হয়। চাকরি পেয়েছে ভেবে যশোর নড়াইল ও মাগুরার ওই বেকারগণ গ্রামে গ্রামে ছুটে গিয়ে গাছ গণনার কাজ শুরু করেন। উদয়নের ফরম হাতে নিয়ে গ্রামে গ্রামে, বাড়িতে বাড়িতে গাছ জরীপ করেন। ৩ থেকে ৪ মাস হাড়ভাঙা খাটুনি করেও তারা বেতন ভাতার মুখ চোখে দেখেননি। এ অঞ্চলের প্রায় লক্ষাধিক মানুষের সাথে তারা প্রতারণায় জড়িয়ে পড়েন। অনেককে উদয়নের নামে অনেক প্রতিশ্রুতিও দিয়ে আসেন কর্মীরা। অথচ সবই ছিল ভুয়া। ৪ মাসে তারা বেতন পাননি আর তাদের দেয়া জামান টাকাও পাননি। ৩ জেলার অফিসে এখন তালা ঝুলছে। অফিসার সেজে বসা চক্রটি আত্মগোপনে। এখন তারা ফোন ধরছেনা। আবার কারো ফোন বন্ধ। যশোরের জেলা ব্যবস্থাপক পদে চাকরি পাওয়া রুহুল কুদ্দুসসহ যশোর সদরের শতাধিক যুবক প্রতারণার শিকার। জেলা ব্যাবস্থাপক নিজেই ২০ হাজার টাকা দিয়ে পদ পান। তিনি সহ শত শত বেকারের জামানত ও বেতন না পেয়ে বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করে চলেছেন। এখন তারা মিডিয়ার দারেস্ত হয়েছেন।
এব্যাপারে যশোরের এরিয়া ম্যানেজার পদ পাওয়া রাজু শেখ, ফতেপুরে শাখা ব্যবস্থাপক মোতালেব হোসেন, কচুয়ার শাখা ব্যবস্থাপক জাহিদুর রহমান, রিয়াদ হোসেন, নরন্দ্রপুরের আল আমিন, বস্ুিন্দয়ার আল মামুন, মাঠকর্মী বিথি, জুথি, জোহরা রেবেকা. খাদিজা, আসমা, বিজয় সমিরণসহ কমপক্ষে ৪০ জন গ্রামের কাগজের এ প্রতি্েবদকের কাছে অভিযোগ করেন তারা প্রতারণার শিকার। তাদের পথে বসিয়েছে বিভাগীয় ব্যবস্থাপক দাবি করা আলোচিত প্রতারক গোলাম আকবর। তারা ওই গোলাম আকবরের হাতে টাকা গুনে দিয়েছিলেন জামানত হিসেবে । তাদের পদ দিয়ে কাজ করিয়ে বেতন দেয়নি। উল্টো তাদের টাকা আত্মসাত করেছে। তিন জেলায় ৫ শতাধিক বেকার যুবক যুবতী ওই উদয়ন চক্রের প্রতারণার শিকার হয়েছেন। এ অঞ্চল থেকে প্রায় কোটি টাকা হাতিয়েছে ওই চক্রটি। এব্যাপারে তারা সরকারে উপর মহলের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

যশোরে জেলা ব্যবস্থাপক হিসেবে দায়িত্ব পাওয়া রুহুল কদ্দুুস বলেন, আমি বুঝতে পারেনি যে, উদায়ন নামের এনজিওটি ভূয়া। এখন বুঝতে পারছি ভূয়া এ এনজিওটি আমাদের সাথে প্রতারণা করেছে। বিভাগীয় ব্যবস্থাপক গোলাম আকবর একজন প্রতারক। তার ফোন নাম্বারটি বন্ধ করে সে আত্নগোপনে রয়েছে। সে ৩ জেলায় সে প্রতারণা করে কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে পালিয়েছে। বৃহত্তর যশোর জেলার কয়েক হাজার বেকার যুবক তাদের সর্বস্ব খুয়ে পথে বসেছে। সর্বস্ব হারানো কর্মীদের নিয়ে তিনি জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নিবার্হী কর্মকতর কাছেন অভিযোগও করেছেন। তবে প্রশাসনের পক্ষ থেকে এখনো কোন সহযোগীতা পাওয়া যায়নি বলে তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *