ঘুষের টাকাসহ আটক রবিউল এখনো কৌশলে প্রতিদিন লক্ষ লক্ষ টাকা আদায় করছে

নিউজটি লাইক-শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিনিধি: হটলাইনে ফোন পেয়ে ঘুষের প্রায় দু’লাখ টাকাসহ দুদোকের জালে আটক অফিস সহকারী রবিউল ইসলাম বহিস্তার থেকেও দলিল লেখকদের কাছ থেকে গোপনে কৌশলে উঠান ঘুষের টাকা। আর এ টাকা উত্তোলণের বড় অংশ ঝিকরগাছা সাব-রেজিস্ট্রার মশিয়ুর রহমানের কাছে দিয়ে থাকেন। বাদ বাকি টাকা তিনি অফিসের অস্থায়ী কিছু কমীও স্থানীয় কয়েকটি সংগঠনের মধ্যে ভাগ বাটোয়ারা করে থাকেন।

এমনটিই জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট অফিসের কয়েকজন কর্মচারী। তবে ঘুষের টাকাসহ আটক রবিউল ইসলাম বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন,আমি ওই ঘটনার পরপরই বহিস্কার রয়েছি। আমি মাঝে মধে অফিস যায় হাজিরা দিতে যায়। তবে অফিসের সমস্ত কিছু দেখাশোনা করেন এখনকার সহকারী শহিদুল ইসলাম।

স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, ঝিকরগাছা সাবরেজিস্ট্রার মশিয়ুর রহমান অফিস সহকারী রবিউল ইসলাম ও শহিদুল ইসলাম স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহলের যোগসাজশে দীর্ঘদিন ধরে দলিল প্রতি জমি বিক্রেতাদের কাছ থেকে প্রতি এক লাখ টাকায় ৩ হাজার টাকা কমিশন হিসেবে নিয়ে থাকেন। তাছাড়া অর্জিনাল পর্চা না থাকলেও আরো এক হাজার করে টাকা নিয়ে থাকেন। এসব টাকার বড় একটা অংশ পেতেন অফিসসহকারী রবিউল ইসলামও সেই সব টাকা দিয়ে তিনি যশোর শহরের শংকরপুরে তিনতলা আলিশান বাড়িও করেছেন

অপার একটি সূত্র জানায়,দীর্ঘদিন ধরে ঝিকরগাছা রেজিস্ট্রি অফিসের কেরানি রবিউলের নেতৃত্বে একটি ঘুষ সিন্ডিকেট খুব বেপরোয়া। এ নিয়ে প্রায়ই ভোগান্তির শিকার হয়ে চলেছেন সাধারন মানুষ এবং মুহুরীরাও। কেরানী রবিউলের সিন্ডিকেটে ঘুষের দুটি ভাগ করা ছিল। যার একটি পার্টেও ঘুষের টাকা থাকে কেরানী রবিউলের কাছে এবং অপর পার্টটি থাকে জহুরুল মহুরীর কাছে। প্রতি সপ্তাহে তিনদিন এভাবে ঘুষের টাকা সপ্তাহে কমপক্ষে ওই দুজনের কাছে জমা হয়। যার পরিমাণ প্রায় ৭ লাখ টাকা।

বিষয়টি নিয়ে বহিস্কার হওয়া রবিউলের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আগে ঝিকরগাছা সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের ঘুষের টাকা ভাগাভাগি করে তার ও জহুরুলের কাছে জমা থাকে। প্রতি সপ্তাহে আগে তাদের কাছে ঘুষের টাকা জমা হত ৭ লাখ। এ টাকা ক্ষমতাসীন কতিপয় রাজনৈতিক নেতা, পাতি নেতাসহ, স্থানীয় কয়েকটি সংগঠনকে ভাগ করে দেওয়া হত। টাকার ভাগ নেয়া কয়েকজনের নাম রবিউল প্রকাশ করলেও তা অজ্ঞাত কারনে প্রকাশ করা হচ্ছে না। তিনি আরো জানান, অফিসের বসই এ ঘুষের টাকা উঠানোর মুল নায়ক। আমি অফিসের দায়িত্বে নেই গত এক বছর ধরে। তার পরেও কি ঘুষের টাকা তোলা বন্ধ হয়েছে? মোটেও হয়নি। বর্তমান অফিস সহকারী শহিদুলও সোহেল নামের এক টেন্ডেল এ ঘুষের টাকা তোলেন। কিন্তু অফিসের কর্মকর্তা রয়ে গেছে বহাল তবিয়াতে। আর আমার মত চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের যত বিপদ। দেশের প্রতিটি অফিসেই চলে ঘুষ কিন্তু কোন কর্মকর্তাই সরাসরি ঘুষের টাকা উঠায় না। তৃতীয়ও চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের মাধ্যমেও ডেলি ভিত্তিক কর্মচারী দিয়ে ঘুষের টাকা উঠোনো হয়। যে কারণে বরাবরের মত অফিসের কর্মকর্তরা থাকে ধরা ছোঁয়ার বাইরে।

বিষয়টি নিয়ে বর্তমান অফিস সহকারী শহিদুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন,এসব টাকার বিষয়টি নিয়ে আমি কিছুই জানি না। আমি সাময়িকভাবে এ দায়িত্বে আছি। রবিউল সাহেব মাঝে মধ্যে অফিসে আসেন। তিনি এখনো অফিসের সব কিছু ম্যানেজ করেন বলে তিনি জানান।

বিষয়টি নিয়ে ঝিকরগাছা সাব-রেজিস্ট্রার মশিয়ুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে, তিনি বলেন আমি কোন ঘুষ বানিজ্যের সাথে জড়িত নায়। তবে এর আগে এখানকার কিছু কর্মচারী স্থানীয়দের নামে বেনামে দলিল লেখকদের কাছ থেকে টাকা তুলতেন। কিন্তু অফিস কর্মকর্তা হিসাবে এগুলোর প্রতিহত করার দায় দায়িত্ব আছে কি না তা জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি বাইরে থেকে এখানে এসেছে। এখানকার প্রভাবশালী স্থানীয়দের যোগ সাজেশে এসব টাকা উত্তলন করা হয়। তাই আমি তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নিতে পারি না বলে তিনি জানান।

উল্লেথ্য ১১ই অক্টবর ২০১৯ সালে সন্ধায় হটলাইন ১০৬-এ ফোন পেয়ে  যশোর দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) দুদকের উপপরিচালক মো. নাজমুছ ছাদায়াত যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে অভিযান চালিয়ে অফিস সহকারী রবিউল ইসলামকে ঘুষের ১লাখ ৭৫ হাজার টাকাসহ আটক করেছিলেন। অভিযানে অফিস সহকারী রবিউল ইসলামের কাছ থেকে ১ লাখ ৭৫ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়। এর মধ্যে বিধিবহির্ভূত (ঘুষের) ১ লাখ ৩৩ হাজার ২৭ টাকা এবং অফিসের টাকা ৪১ হাজার ৯ শ’ ৭৩। তবে ওই সময়ে দুদকের অভিযান বুঝতে পেরে পালিয়ে যান ওই অফিসের ঘুষের টাকার ক্যাশিয়ার হিসেবে পরিচিত মহুরি জহুরুল ইসলাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *