ঘাতকের দিন লিপি

নিউজটি লাইক-শেয়ার করুন

রমেন বিশ্বাস:১৯৭১-এর ঘটনাক্রম মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস গবেষণার মূল উপাদান। এই ঘটনাক্রমে যেমন আছে বীরত্বগাঁথা, আত্মোৎসর্গের অগণিত উদাহরণ, তেমনি আছে নির্মমতা, দালালির নজিরবিহীন দৃষ্টান্ত। ইতিহাসের এই খলনায়কদের আড়ালে রেখে কখনো মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, বীরত্ব ও গৌরবগাঁথা শঙ্কামুক্ত থাকতে পারে না, ইতিহাসও থাকে না অবিকৃত।
১৯৯২ সালের ১৯ জানুয়ারি শহীদ জননী জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে গঠিত হয় ‘একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি’। এই কমিটি একই বছরের ২৬ শে মার্চ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ‘গণ আদালত’ প্রতিষ্ঠা করে গোলাম আযমের প্রতীকী বিচার করে তার মৃত্যুদণ্ডের রায় দেয়। ২০১০ সালে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল গঠন এবং ২০১৩ সালের ডিসেম্বরে আবদুল কাদের মোল্লার ফাঁসিসহ আরও অনেক যুদ্ধাপরাধীর বিচার ১৯৯২ সালের গণ আদালতেরই ধারাবাহিকতা। আর এই বিচার প্রক্রিয়ায় গণবিরোধী ঘাতক-দালালদের অপরাধ শনাক্তে ১৯৭১- এর ঘটনাক্রম আরও গুরুত্ববহ হয়ে উঠে।
১৯৯২-এর গণ আদালতের পক্ষে জনমত তৈরির ক্ষেত্রে সে সময়ের জনপ্রিয় দৈনিক আজকের কাগজ “ঘাতকের দিনলিপি” ১৯৭১-এর ২৫শে মার্চ থেকে ১৬ই ডিসেম্বর পর্যন্ত ঘটনাক্রম দিনলিপি হিসাবে প্রকাশ করে এক ঐতিহাসিক দায়িত্ব পালন করে। রচনাটির বস্তুনিষ্ঠতা নিশ্চিত হয় একাত্তরে প্রকাশিত দৈনিক পত্রিকার খবর তথ্যসূত্র হিসাবে ব্যবহারের মাধ্যমে। ১৯৯৩ সালে “ঘাতকের দিনলিপি” পুস্তকাকারে প্রকাশ এই ধারাবাহিকতারই অংশ।
সময় নদীর স্রোতের মতো বহমান। সেই প্রবহমানতায় মানুষ অনেক সময়ই ভুলে যায় পেছনের পথরেখা। আজও তাই ৭১-এর ঘাতক দালাল এবং তাদের সহযোগী ও অনুসারীরা দাপিয়ে বেড়ায়, এমনকি ক্ষমতার অংশ হয়ে উঠে। স্মৃতি সংরক্ষণে পুস্তকের ভুমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। “ঘাতকের দিনলিপি” সেই অর্থে আজও সমান গুরুত্ব বহন করে এবং ভবিষ্যতেও করে যাবে।

লেখক:রমেন বিশ্বাস সম্পাদক চ্যানেল নাইন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *